GPS SIGNAL VOICE: প্রায়ই শু’নে থাকেন এই মহিলার গলা, কাছ থেকে চিনে নিন তা’কে

314

অনেক মানুষই জিপিএসচালিত যন্ত্রে তাঁর মোলায়েম কণ্ঠের নির্দেশেই অনেকে পথ খুঁজে পান। প্রায় প্রতি দিনই শোনেন এই মহিলার কণ্ঠস্বর। সিনেমা হল থেকে বিলাসবহুল প্রমোদতরী, সফ্টওয়্যার অ্যাপ্লিকেশন হোক বা অডিয়োবুক— সবের নেপথ্যেই রয়েছেন ক্যারেন জেকবসন।

অনেকের কাছে যিনি ‘জিপিএস গার্ল’ নামে পরিচিত। এককালে যিনি নিজেও জানতেন না, জিপিএসচালিত যন্ত্রে তাঁর কণ্ঠস্বরই ব্যবহৃত হচ্ছে।কেবলমাত্র জিপিএসের নেপথ্য কণ্ঠস্বর হয়েই শিরোনামে উঠে আসেননি ক্যারেন।

অস্ট্রেলিয়ার একটি অখ্যাত শহর থেকে আমেরিকার গিয়ে হয়ে উঠেছেন খ্যাতনামী গায়িকা, ভয়েসওভার আর্টিস্ট। নিজের বক্তৃতার মাধ্যমে প্রেরণা জুগিয়েছেন বহু জনকে। কী ভাবে সাফল্যের পথে হাঁটা যায়, তা-ও লিখেছেন তাঁর দু’টি বইয়ের পাতায়।

ক্যারেন ছোটবেলা থেকেই অলিভিয়া নিউটন-জনের মতো হতে চেয়েছেন।অস্ট্রেলিয়ার থেকে হলিউডে পাড়ি দিয়ে যিনি গানে-অভিনয়ে দুনিয়া মাতিয়েছেন। সাত বছর বয়সে টেলিভিশনে অলিভিয়াকে দেখামাত্রই স্থির করেন, তিনিও আমেরিকার যাবেন। অলিভিয়ার মতোই গান বেঁধে পেশাদারি মঞ্চে গাইবেন।

ক্যারেন অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের ম্যাকে শহরে বেড়ে উঠেছেন। এক সময় সেখান থেকে আমেরিকায় পা়ড়ি দেন তিনি। স্বপ্নপূরণের যাত্রায় সঙ্গী বলতে ছিল একটি স্যুটকেস। এবং অবশ্যই মনের কোনায় ছিল সুরের ডালি।

আমেরিকায় পাড়ি দেওয়ার আগে সঙ্গীতের তালিমও শেষ করেছিলেন ক্যারেন। কুইন্সল্যান্ড কনজাভেটোরিয়াম গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কণ্ঠস্বর এবং পিয়ানো বাজানোয় স্নাতক ডিগ্রিলাভ। তার পর পিয়ানোয় জ্যাজ বাজানো নিয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যান।