২০২০ সালে কলঙ্কে ভরা বলিউড, বলিউড থেকে কি হারিয়ে যাচ্ছে তিন খান?

229

চলতি বছরটা যে যে কোন বলিউড ইন্ডাস্ট্রি অভিনেতা-অভিনেত্রীর জন্য খুবই খারাপ সময় তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ১৪ ই জুন থেকে ১৪ সেপ্টেম্বর, এই চার মাসে বলিউড নিয়ে যে যতরকম খবর ছাপা হয়েছে, তার বেশিরভাগ জুড়ে রয়েছে সুশান্ত সিং রাজপুত। ডেকান ক্রনিকল, বলিউড হাঙ্গামা, ইকোনমিক টাইমস, টাইমস অফ ইন্ডিয়া, এ সমস্ত ভারতীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম তাদের প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দিয়ে দিয়েছে যে আস্তে আস্তে বলিউড হারাচ্ছে তার ব্র্যান্ড ভ্যালু।

বড় তারকা নেই ছবির আলোচনাতে-

আমরা বড় তারকা বলতে বুঝি তিনজন খানকে। কিন্তু প্রায় বহু বছর হতে চলল শাহরুখ খানের ঝুলিতে নেই কোনো বড় মাপের সিনেমা। তার জায়গায় কখনো কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করে, কখনো বা মোবাইল কিনে নিয়ে খবরের শিরোনামে দেখা গেছে তাকে।

আমির খানের সিনেমা, থাগস অফ হিন্দুস্তান, ফতিমা সানা সেনের সঙ্গে প্রেম, তুরস্কের ফার্স্ট লেডি র সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ, এই সবকিছু নিয়ে বারবার উপহাস করতে দেখা গেছে তাকে। এই সমস্ত কর্মকান্ডের জন্য নেতিবাচক খবরের শিরোনামে বারবার উঠে এসেছে আমির খানের নাম।

সালমান খানের কথা আলাদা করে কিছু বলার অপেক্ষা রাখে না। সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর পর তাকে নিয়ে যে কিভাবে নেতিবাচক আলোচনা হয়েছে তা সকলেরই জানা।

এই তিনজন এই কয়েক দশকের মধ্যে হারিয়েছেন বেশ কিছু ব্র্যান্ডের এনডোর্সমেন্ট।

৬ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি-

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার প্রকাশিত একটি রিপোর্টে ইতিমধ্যেই তুমুল সাড়া ফেলে দিয়েছে সকল মহলে। দীর্ঘ চার মাসের মধ্যে বলিউডে ক্ষতি হয়েছে ৬ হাজার কোটি টাকার। একদিকে যেমন দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ছিল সিনেমার শুটিং, অন্যদিকে হঠাৎ করে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু আরো বেশি ক্ষতির মুখে ফেলে দিয়েছে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি কে।দীর্ঘ লকডাউন এর কারণে পরিচালক থেকে শুরু করে কলাকুশলীরা সকলেই অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য বেকার হয়ে পড়েছিলেন। বাধ্য হয়ে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের ও টি টি প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে চুক্তি সারতে হোয়েছে।

ভুয়া ফলোয়ার কান্ড-

বলিউডের প্রথম সারির দুই অভিনেত্রী দীপিকা পাডুকোন এবং প্রিয়াঙ্কা চোপড়া কিছুদিন আগেই এই অভিযোগে শিকার হয়েছিলেন যে, শুধুমাত্র টাকা দিয়ে কয়েক হাজার ফলোয়ার সংখ্যা তারা বাড়িয়েছিলেন তাদের সোশ্যাল মিডিয়ার হ্যান্ডেলে। এই অভিযোগের কারণে তাদের থানায় বেশ কয়েকবার যাতায়াত করতে হয়েছিল। সম্প্রতি নিজেরাই তাদের প্রভাব খাটিয়ে এই সমস্ত কলঙ্ক মুছে ফেলতে সক্ষম হয়েছেন তাদের ইমেজ থেকে।

মৌলিক গল্পের অভাব-

বলিউডে বহুদিন কোন ভালো গল্প নিয়ে সিনেমা তৈরি হয় না। বলিউডে যে সমস্ত সিনেমা তৈরি হয়, তা হয় দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমা থেকে নেওয়া, নয়তো কোন পুরনো বলিউড সিনেমার রিমিক্স। শুধুমাত্র সিনেমা নয়, গান গুলিতেও থাকে পুরনো গানের রিমিক্স। এই সুযোগে মানুষের মনে অনেকটাই জায়গা করে নিচ্ছে অনলাইন প্লাটফর্ম।

নড়বড়ে আর লোকদেখানো সম্পর্ক-

বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে যে কেউ কারো নয়, এ কথা কোথায় আমরা সকলেই জানি। কিন্তু সুশান্তের মৃত্যু সে কথা আরো একবার চোখে আঙ্গুল দিয়ে প্রমাণ করে দিল। কোন বিষয়ে কোন ব্যক্তির সঙ্গে অন্য কোনো ব্যক্তির মিল নেই। তারই মধ্যে মাদকচক্রের একের পর এক জড়িয়েছে প্রথম সারির অভিনেত্রীদের নাম। কিন্তু তাদেরকে সাপোর্ট করার মত লোকের বড় অভাব।

অন্যদিকে যেমন বলিউড ইন্ডাস্ট্রি ইমেজকে ধরে রাখার জন্য এগিয়ে এসেছিলেন জয়া বচ্চন, কিন্তু জয়া বচ্চনকে পাল্টা অভিযোগ করে আরো অনেক বলিউডের কলাকুশলীরা তার বিরুদ্ধে মন্তব্য রেখেছিলেন।

আর বলাই বাহুল্য সুশান্ত সিং রাজপুত নিয়ে মনোমালিন্য রয়েছে বলিউডের প্রত্যেক ব্যক্তির মধ্যে।

তাই দুই হাজার কুড়ি বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে আরো একবার ভাবতে বাধ্য করলো যে, তারা যতটা কষ্ট করে মানুষের ভালোবাসা অর্জন করেন, একটিমাত্র ভুলে তা মাটিতে মিশে যেতে পারে।